GRE পড়ার টাইম নাই

নির্বাচিত প্রশ্নের মূল পেইজ

প্রশ্ন::

ভাইয়া, অনার্স শেষ করে এখন মাস্টার্স করছি। ফ্যামিলি কন্ডিশনের জন্য জব করা লাগবে কিন্তু আমার ইচ্ছা USA যাওয়া। আর USA যাইতে হলে GRE দিতে হবে। কিন্তু সপ্তাহে দুই দিন সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ল্যাবে থাকি। বাকি ৩দিন সকাল ৮টা থেকে ৪ টা পর্যন্ত ক্লাস!! ভাইয়া আমি কি করব???? জব করে আমি কিভাবে এই প্রস্তুতি নিব?? ...খুবই হতাশ......চাকরি বাদ দিয়ে টানা ৪ মাস GRE পড়বো নাকি , GRE স্বপ্ন বিসর্জন দিব??

আমার উত্তর::

তুমি তো ৫ দিনের কাজের হিসাব দিছো। বাকি দুই দিন কি করো? শুনো, যে কাজের চাপে খাওয়া, বাথরুম আর ঘুমানোর সময় বের করতে পারে না, সে ছাড়া দুনিয়ার সবার হাতেই সময় আছে। সো, নিজেকে আজাইরা ব্যস্ত মনে করার অভ্যাস ছাড়। যে কাজগুলা তোমার টিকে থাকার জন্য, এগিয়ে যাওয়ার জন্য আজকে করা অত্যাবশ্যক না, সেগুলাই আকাজ। সেগুলাই অপচয়। সেগুলা করবা না। সময়ের অভাব হবে না।

খুব বেশি দরকার হলে, এক পিস সাদা কাগজ নিয়ে বসো। গতকালের সারাদিনের ২৪ ঘন্টায়, তোমার ফিউচারের জন্য, বেঁচে থাকার জন্য যা যা করছো তার একটা লিস্ট বানায় ফেলো। যেমন, ঘুমানোর জন্য ৬ ঘণ্টা, রাতের খাবারের জন্য ৩০ মিনিট, ভার্সিটি যেতে-আসতে ৪০ মিনিট, ক্লাস ৪ ঘন্টা, ইত্যাদি। এরকম সারাদিনে করা সব কাজের একটা লিস্ট বানিয়ে সেটাকে যোগ করতে গেলে দেখবা সব কাজ মিলিয়ে ২৪ ঘণ্টা হয় না। যে কয়ঘন্টা বাকি রয়ে গেছে সেই কয় ঘন্টাই আলতু ফালতু-ভাবে নষ্ট করছো। আজকের পর থেকে আলতু ফালতু কাজে সময় ব্যয় না করে, সে সময়গুলাতে GRE পড়তে হবে।

তাছাড়া যে কাজগুলা করতেই হবে সেগুলাকে জিআরই পড়ার সাথে কম্বাইন করে ফেলো। যেমন, রাতে পড়ার পর কিছু ওয়ার্ড একটা কাগজে নোট ডাউন করে রাখলা, পরদিন তুমি যখন ভার্সিটি যাওয়ার সময় বা রাতে খাওয়ার সময় সেই খাতা দেখতে থাকবা। গোসল, বাথরুম করার সময় মনে মনে ওয়ার্ডগুলা রিভাইস দিবা। জীবনে সফল হওয়ার জন্য- সময় ব্যয়ের ক্ষেত্রে, টাকার পয়সার চাইতেও বেশি কৃপণ হতে হবে।

তোমার প্রশ্নের ২য় পার্টের উত্তর:

চাকরি বাদ দিয়ে টানা ৪ মাস বের করা অনেকের জন্যই কঠিন হয়ে পড়ে। তাই স্বপ্নকে ভবিষ্যতের জন্য ঝুলায় না রেখে, মাস্টার্স চলা কালীন সময়গুলা কাজে লাগাও। এবং দরকার হলে, মাস্টার্স শেষ করে চাকরি শুরু করার আগে ২ মাস সময় নিয়ে GRE দিয়ে দেয়া। আর মাস্টার্সের পরীক্ষার কারণে এক সপ্তাহ GRE পড়তে না পারলে, পরীক্ষার পরের সপ্তাহে GRE এর কোন একটা অংশের জন্য নিজেকে ডেডলাইন দাও। ধরো, ‘D’ থেকে ‘G’ দিয়ে শুরু হওয়া ওয়ার্ডগুলা ঠোটস্থ করার জন্য ডেডলাইন দিয়ে দিলা। তাইলে মিডের কারণে যে কয়দিন GRE তে গ্যাপ গেছে, GRE এর ডেডলাইনের কারণে সেটা কভার হয়ে যাবে।

একটু সিনসিয়ার আর ডেডিকেটেড হলে, অল্প কদিনেই মোটামুটি মানের প্রিপারেশন নেয়া সম্ভব। তবে সব কিছু নির্ভর করবে তোমার উপরে। কারণ তোমার সফলতা শুধুমাত্র তোমার চেষ্টার দিয়েই রচিত হবে।


FB post