সেমিস্টারে ড্রপ

নির্বাচিত প্রশ্ন - ২

নির্বাচিত প্রশ্নের মূল পেইজ

প্রশ্ন::

আমি XXX ইউনিভার্সিটি তে আছি...একটা কারনবশত তৃতীয় সেমিস্টারে ড্রপ খাই..২০১৩ এর শেষে। এর পর পড়া থেকে আমার মন উঠে যায়। জুনিয়রদের সাথে ক্লাস। পিছনের কিছু গ্যাপ সব মিলায়ে অসহ্য লাগে পড়তে। কোনও মতে আরেক সেমিস্টার পার করি কিন্তু এর পর আর পার করতে পারতেসি না...চরম GUILT কাজ করে। হতাশ লাগে। confidence নেগেটিভ এর ঘরে। কোনও মতে পড়া শুরু করলেও মাঝপথে হারায়ে জাইতেসি ... এইটা রিপিট হইতেসে কয়েক সেমিস্টার ধরে। ২ বছরের বেশি লস করে ফেলসি ... আমি ডিগ্রী টা পাইতে চাই কিন্তু পরতেও ভাল লাগে না । ভাল লাগ্লেও তা বেশি দিন ধরে রাখতে পারি না... কিভাবে কি করব বুঝতেসি না।

আমার উত্তর::

নিজের ভিতরে বেশি সিনিয়র ভাব চলে আসছে? শুনেন, আপনি আরো দুই সেমিস্টার ফেল করে যদি আরো দুই ব্যাচ নিচেও যান, সেই ব্যাচের পোলাপান, আপনার জুনিয়র না। আপনার সহপাঠী। আপনার বন্ধু। বুঝা গেছে? আপনার লেভেল নিচে নেমে ওদের সমান লেভেলে আসছে। কোনো আসছে? আপনার কারণে আসছে। সো, নিজের বর্তমান অবস্থা স্বীকার করে, নিজের ভিতর থেকে সিনিয়র গিরির ভূত তাড়াতে হবে। নইলে, এখনতো মাত্র ক্ষত লাগা শুরু হইছে, কয়দিন পরে, পইচ্যা গইল্যা গন্ধময় হইয়া যাইবেন গা।

আর আপনি সুপারস্টার হয়ে যান নাই যে, সবাই নিজে এসে আপনার সাথে দোস্ত হবে। বন্ধুগিরি আপনারেই শুরু করতে হবে। ক্লাসের পিছনে বসা যাবে না। আজকে থেকে সেকেন্ড বা ফার্স্ট বেঞ্চে বসবেন। ক্লাসের সবাইকে বলে দিবেন, ওরা জেনো, তুই বা নাম ধরে ডাকে। ক্লাসের যে কাজগুলি কেউ করতে চায় না, সেগুলা যেচে, নিজে থেকে আগ বাড়িয়ে করতে হবে। যেমন, টিচার কোন নোট দিবে, সেটা ফটোকপি করে সবাইকে দেয়া, পিকনিকে যাওয়ার জন্য চাঁদা তোলা, বাস ঠিক করা। খেলাধুলা, আড্ডা দেয়া। ইচ্ছে করে, ওদের স্ট্যাটাসে লাইক-কমেন্ট করে ইন্টারাকশন বাড়াতে হবে।

নিজেরে লাজুক, ইন্ট্রোভার্ট মনে করা ছাড়েন। নচেৎ আপনার এখনকার guilty ফিলিংস বেড়ে রেগুলার ডিপ্রেশনের জন্ম হবে। এখনতো পড়তে ভালো লাগে না। দুইদিন পরে খাইতে ভালো লাগবে না। তিনদিন পরে কারো সাথে কথা বলতে ভালো লাগবে না। এইভাবে ছয় মাস চলতে থাকলে দেখবেন, আর বাচতে ইচ্ছে করবে না। কোন এক কারণে এক সেমিস্টার গেছে, সেটার আফসোসে বাকি লাইফ নষ্ট হবে। সো, জড়তা কাটিয়ে, ওদের সাথে মিশা শুরু করলে, দেখবেন সব আফসোস নাই হয়ে, অনেক মাস্তিতে ভার্সিটি লাইফ শেষ করে ফেলছেন। সেই মাস্তিময় লাইফের শুরু করতে হবে আজকেই, এই মুহূর্ত থেকেই।


FB post