you always have time

গুরু নাম্বার - ৬

See other Gurus

স্বপ্নের জন্য সাধনা ::

আমরা এতো এতো ব্যস্ত থাকি যে, নিজের স্বপ্ন পূরণের জন্য টাইম বের করতে পারি না। আর কেউ যদি ভোর ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত গ্যাস পাম্প স্টেশন কাজ করে, তার তো দম ফেলানোরই সুযোগ থাকার কথা না। তারপরেও Colonel Sanders কাজের ফাঁকে ফাঁকে পরিবারের সদস্যের জন্য খাবার বানাতেন আর চেষ্টা করতেন, গ্যাস কিনতে আসা কাস্টমারের কাছে সে খাবার বিক্রি করতে। কোন কাস্টমার না পাইলে নিজেরাই খেয়ে ফেলতেন। শুধু যে খাবার বিক্রি করতেন তা কিন্তু না, কাস্টমার আসুক বা না আসুক, চিকেনের মধ্যে বিভিন্ন ফ্লেবার/মশলা দিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করে সিক্রেট রেসিপি বের করার সাধনা চালিয়ে যেতে থাকলেন। একটু একটু করে সেই সাধনা কয়দিন চালাইছিলেন জানেন? এক-দুই দিন না, এক-দুই বছর না। ১১ বছর।

ফেইল ফাস্ট এন্ড মুভ অন ::

১৯৩৯ সালের জুলাই মাসে একটা রেস্টুরেন্ট দিয়ে বসলেন তখন তার বয়স ৪৯ বছর। ভাগ্য এতই খারাপ যে, চার মাস না যেতেই নভেম্বর মাসে আগুনে পুড়ে যায় স্বপ্নের রেস্টুরেন্ট ও পার্শ্ববর্তী মোটেল। পুড়ে যাওয়া সেই রেস্টুরেন্ট আবারো দাড় করালেন। কয়েক বছর পরে, বাদ সাধলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অর্থনীতির চাপ। রেস্টুরেন্টে কাকপক্ষীও আসে না। বাধ্য হয়ে ব্যবসা বন্ধ করে কফি শপে, ইন্সুরেন্সের সেলসম্যান হিসেবে কাজ করতে শুরু করলেন।

মুভ এগেইন::

৬০ বছর বয়সে যখন রিটায়ার্ড করার কথা, তখন রিটায়ার না করে একটার পর একটা রেস্টুরেন্টে যেতে লাগলেন। নিজের সিক্রেট রেসিপি দিয়ে চিকেন বানিয়ে রেস্টুরেন্টের কর্মচারী, মালিক ও কাস্টমারদের খাওয়াতেন। একটাই আশা, ওরা পছন্দ করে তার সিক্রেট রেসিপি অনুযায়ী চিকেন পরিবেশন করলে Colonel কিছু টাকা পাবে। কিন্তু কেউ রাজি হতো না। এইভাবে চলতে চলতে নিজের সব টাকা শেষ হয়ে আসতে লাগলো। Corbin, Kentucky তে শুরু করা Kentucky Fried Chicken (KFC) এর ফার্স্ট রেস্টুরেন্টে বিক্রি কমে যাওয়ায়, সেটা বিক্রি করে লোন পরিশোধ করা লাগলো।

হারতে পারে কিন্তু::

৬৫ বছর বয়সে সব কিছু হারিয়ে, শেষ ভরসা বৃদ্ধ-ভাতা। ভাতা হিসেবে প্রথম মাসে ১০৫ ডলার পাওয়ার পর, নিজেকে আর আটকে রাখতে পারলেন না। কারণ, Colonel Sanders হারতে পারে কিন্তু ছাড়তে জানে না। পুরাণ গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়লেন নিজের রেসিপি নিয়ে ছোট ছোট ফ্রানচাইজ রেস্টুরেন্ট খোলার জন্য লোকজনকে কনভিন্স করতে। ধারণা করতে পারবেন, সর্বপ্রথম কোন একটা রেস্টুরেন্টকে রাজি করানোর জন্য কতগুলা রেস্টুরেন্টের কাছে যেতে হয়েছিলো? একটা না দুইটা না, ১০০৯ টা রেস্টুরেন্ট। সেই ৬৫ বছর বয়স থেকে ৭৪ বছর বয়স পর্যন্ত নিজেই মার্কেটিং করে USA, কানাডা, ইংল্যান্ড, মেক্সিকো সহ অনেক দেশে KFC এর ৬০০ টি ফ্রানচাইজ খুলতে সক্ষম হয়েছিলেন। ৯০ বছর বয়সে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত KFC এর মুখপাত্র হিসেবে কাজ করে গেছেন।

ডেডিকেশন ফর ড্রিম ::

Colonel যদি ৬৫ বছর বয়সে শুরু করে তার ড্রিম সাকসেসফুল করত পারে, আপনি কেনো আপনার বর্তমান বয়স থেকে শুরু করতে পারবেন না? গ্যাস স্টেশনে দিন রাত কাজ করার পরেও নিজের স্বপ্নের জন্য একটু একটু করে সাধনা চালাতে পারলে, আপনি নয়টা - পাঁচটা ডিউটি করে কেনো পারবেন না? Colonel তার স্বপ্নের জন্য সলিড ভালবাসা তৈরী করতে পেরেছেন বলেই, শত শত লাত্থি উষ্ঠা খাওয়ার পরেও সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য ফিরে এসেছেন। আমরা কি আমাদের ড্রিমটাকে সে রকম ভালবাসতে পেরেছি? না পারি নাই। সেজন্যই তো আমরা অল্পতেই ছেড়ে দেই। সহজেই ভুলে যাই, কি হতে চেয়েছিলাম আর কি হয়ে রইলাম। সময় নাই, বয়স নাই, মুড নাই, টাকা নাই, অজুহাতের শেষ নাই। আসল কথা হচ্ছে, সঠিক ইচ্ছা নাই, স্বপ্নের প্রতি ডেডিকেশন নাই। স্বপ্ন পোক্ত হইলে, আপনি ভুল করতে পারেন, হেরে যেতে পারেন কিন্তু ছেড়ে দিতে পারেন না।

এক্সট্রা

সংসারের খরচ মেটাতে, ক্লাস সিক্সে পড়ালেখা বাদ দিয়ে, মাসে ২ ডলার বেতনে জঙ্গল পরিষ্কারের কাজ করতে বাধ্য হন। মধ্য বয়সে নৈশ স্কুলে আইন পড়ার চেষ্টা করলেও, জীবনের প্রথম মামলা হ্যান্ডেল করতে গিয়ে, কোর্টে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। ডিটেল জানতে Colonel Sanders এর উইকি পেইজ বা autobiography of original celebrity chef (pdf book) পড়তে পারেন (আমি পড়িনি)


FB post