Love your goal to pursue

গুরু নাম্বার - ৩

See other Gurus

ঐ দূর পাহাড়ের ধারে::

পাহাড়ের উল্টা দিকে নিকটবর্তী শহরের সবচেয়ে কাছের ডাক্তারের কাছে যেতে হলে, অনেক অনেক গ্রাম ঘুরে ৮০ কিলোমিটার গ্রামের রাস্তা পাড়ি দিয়ে যেতে হয় চিকিৎসা পেতে। অনেকেই দুরুত্বের ভয়ে ডাক্তারের কাছেই যাওয়ার সাহস পায় না। ভাগ্য আর দুরুত্ব মেনে নিয়ে, গ্রামের মধ্যেই, রোগ আলিঙ্গন করে, ইহকাল ত্যাগ করে। সবার একই কন্ডিশন, আমাদের কপাল খারাপ, আমরা এই গ্রামে জন্মেছি। এখন এইভাবে মরতে হবে। কিচ্ছু করার নাই। দাশ্রাথ মানজির বউ অসুস্থ হয়ে যাওয়ায়, তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার পথে, ব্যাড লাক খারাপ হয়ে, বউ মারা যায়।

শিক্ষিত ভাবস ::

অন্য সবার মত দুই দিন মন খারাপ করে, বাস্তবতা মেনে নিয়ে, পাশের বাড়ির বিধবার সাথে লাইন মারাই ছিলো বুদ্ধি মানের কাজ। কিন্তু হাদারাম কৃষকের মাথায় কি যে ভুত চাপছে, আল্লাহ মালুম। এই গন্ডমুর্খ কৃষক। যে কিনা ভাত খাইতে চাল খুঁজে পায় না। বউয়ের শোকে পাগল হয়ে মাথায় স্ক্রু ডিলা হয়ে গেছে। সে নাকি পাহাড় কেটে, রাস্তা বের করবে। শর্টকাটে শহরে যাওয়ার জন্য। আশেপাশের লোকজন কেউ মুচকি হাসে, কেউ টিটকারী মারে, কেউবা বলে দুই দিন পর বউয়ের চিন্তা মাথা থেকে গেলে, ঠিক হয়ে যাবে। মাঝখানে আমরা কয়দিন মজা লই। আর আমার মত তথাকথিত শিক্ষিত, কেউ থাকলে, বুলডোজার, কাটিং, ড্রিলিং, ক্রেইন নিয়ে মোট ছয় বছরে ৫০ টা প্লানিং মিটিং করে, ইনফিজিবল তকমা মেরে কোক খাইতাম।

বারে বারে লাথি ::

সেই পাগলা কৃষক সিম্পল হাতুড়ি-বাটাল দিয়েই পাহাড়ের বুকে আঘাত করতে লাগলেন। দাশ্রাথ জানে, বারে বারে লাথি দিলে তালা ঠিকই ভাঙ্গবে। সেই হাতুড়ির বাড়ি, এক দিন দুই দিন নয়, এক রাত দুই রাত নয়, দুই-তিন মাস বা দুই-চার বছর নয়, ২২ বছর পরে, খেয়ে না খেয়ে, ঝড় বৃষ্টি বাদল উপেক্ষা করে, ঠিকই পাহাড়ের মধ্য দিয়ে রাস্তা বের করে ফেলছে। একাই। If your dream is dependent on somebody else, dont dream. ১৯৬০ থেকে শুরু করে, ১৯৮২ সালে ঠিকই রাস্তা বের করে দিয়েছে।

বউয়ের শোকে পাগল হয়ে, ২১ বছর লাগায়া আরেকজন তাজমহল বানায়ছে। এই বিত্তশালী লোকের স্ট্রাগল আর দাশ্রাথ মানজির স্ট্রাগল এক টাইপের ছিলো না। তবে, যার যার ইনিশিয়াল কন্ডিশন থেকে লক্ষ্য অর্জনের জন্য পরিশ্রম, সাধনা করা লাগছে। একজনকে একটু বেশী আরেকজনকে একটু কম করা লাগছে। পরিশ্রম আর সাধনা থেকে মাফ কিন্তু নাই।

Fiction vs Reality ::

আপনার আশে পাশে অনেকেই থাকবে যারা, শহরে বড় হইছে, ইংরেজিতে ভালো, আগে থেকে প্রোগ্রামিং জানে, ফেমিলি সাপোর্ট দিতে হয় না, বাপের টেকা আছে। এইরকম অনেক কিছু দিয়ে, জ্ঞানে বুদ্ধিতে, মাংসপেশিতে, শক্তিতে আগায় থাকবে, এইগুলা সমস্যা না। সমস্যা হচ্ছে আপনার মাথায়। দুনিয়ার কে কি ভাবছে, কে কি বলছে, কে কি বাস্তবতা বা লজিক খুঁজে পায়নি, সেটা মেনে নিয়ে বসে থাকলে, u r just too predictable to be trashed. টম ক্লানশি ভাইয়া বলেছেন, “The difference between fiction and reality? Fiction has to make sense.”

অডেল রিসোর্স বা রিক্ত হস্ত ::

আপনার কাজের জন্য, লক্ষ্য অর্জনের জন্য যদি অন্য কারো মোটিভেট করার দর্কার হয়, plz dont go for it, you are just wasting your time. তার চাইতে ভালো নাকে ফরমালিন দিয়ে ঘুমান। নাক পচবে না, সর্দি কাশি হবে না। আপনার অডেল রিসোর্স বা রিক্ত হস্ত যাই থাকুক না কেনো, কোন লক্ষ্য অর্জনই সিম্পল হবে না। if u achieve ur goal after one or two try, u r just successful in fooling urself.


FB post